উইলিয়াম এ এস ঔডারল্যান্ড (বীরপ্রতীক), মহান মুক্তিযুদ্ধ ও আমার বাবা!

মতিউর রহমান লিটু: ২রা সেপ্টেম্বর আমার বাবা জনাব আতাহার আলী মোল্লার মৃত্যু বার্ষিকী। ২০১৩ সালের এই দিনে হৃদপিণ্ডে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ জনিত কারণে বরিশাল শের এ বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৭৭ বছর বয়সে তিনি ইন্তেকাল করেন। অত্যন্ত সজ্জন ব্যক্তি হিসাবেই সকলের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে ইহজনম ত্যাগ করেছেন।

নম্রতা ও ভদ্রতা আমার বাবার অন্যতম বৈশিষ্ট ছিল। অতীব সাধারণ জীবন যাপন করতেন, জীবনের প্রথম বয়সে কষ্ট করলেও শেষ বয়সে টাকা পয়সার কোন কমতি ছিলোনা। আজ আমার বাবার বলে যাওয়া স্বাধীনতা যুদ্ধের কিছু স্মৃতি আপনাদের মাঝে তুলে ধরতে চাই যেটা কিনা ৯০ দশকে তিনি আমাকে জানিয়েছিলেন। অনেক রিসার্চ করে সেই দিনগুলির সত্যতা খুঁজে আজকে এই রিপোর্টটি আপনাদের মাঝে তুলে ধরতে চাই।

অতীব সাধারণ পরিবারে জন্ম নিয়েছিলেন আমার বাবা। তিনি পটুয়াখালী জেলার মির্জাগঞ্জ থানাধীন উত্তর সুবিদখালী গ্রামের মোল্লা বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। জীবনে কোন আহামরি চাহিদা না থাকলেও নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে স্বাবলম্বী হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে খুলনা শহরে চাকুরী সন্ধানে বেরিয়ে পড়েছিলেন ১৯৬৫ সালে। জনৈক ভূঁইয়া সাহেব নামক এক “মহামানুষ” বাবাকে “বাটা” সু কোম্পানির সেলসম্যানের একটি চাকুরীর ব্যবস্থা করেছিলেন মাত্র ১৪০ টাকা বেতনে। কথাগুলি আমার বাবা ১৯৯১ সালের কোন এক সন্ধ্যায় অশ্রুসিক্ত নয়নে আমাকে জানিয়েছিলেন। তখন আমি পটুয়াখালী সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র। বাবার কথাগুলি আমার হুবহু মনে আছে। আমি প্রচন্ড মেধাবী না হলেও উল্লেখযোগ্য মেধাবী ছাত্র হিসাবে বেশ নাম ডাক ছিল এলাকায়। বাবার কথা গুলি হৃদয়ের মাঝে অনেকদিন অযত্নে পড়েছিল; গত কয়েকদিন তার বলে যাওয়া কথাগুলি নিয়ে রিসার্স শুরু করি এবং সকল ঘটনার সত্যতা খুঁজে পাই। তাই ভাবলাম সময় এসেছে স্বাধীনতা যুদ্ধে একজন সাধারণ মানুষ হিসাবে আমার বাবার অবদানটুকু জাতির সামনে তুলে ধরি।

আমার প্রচেষ্টা বাবাকে সার্টিফিকেটধারী মুক্তিযোদ্ধা বানানো নয় কেবল তার আত্মত্যাগ টুকু সকলকে জানানো। তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিতে পারেননি কেননা তিনি তখন নতুন যোগদান করা একজন ক্ষুদ্র চাকুরীজীবি ছিলেন। এছাড়া বাবা অন্যকে গুলি করে মারার মতো তেমন সাহসী ব্যক্তিও ছিলেন না, নিতান্তই একজন সাধারণ মানুষ ছিলেন তিনি।

১৯৬৫ সালে চাকুরীতে যোগদান করা মানুষটি যখন একটু স্বাবলম্বী হলেন তখন তিনি ১৯৬৯ সালে আমার মা মনোয়ারা বেগমকে বিয়ে করে খুলনায় নিয়ে আসেন। যদি আমার নামটি লিখতে ভুল না হয় খুলনায় দোলখোলা নামক কোন এক জায়গায় আমার মা’কে নিয়ে বসবাস শুরু করেন। অতীব তরুণ টগবগে বাবা ১৯৭০ সালে বাটা সু কোম্পানির “বেস্ট সেলসম্যান” হিসাবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। সেই সুবাদে ঢাকা হেড অফিসে পুরস্কার আনতে গেলে পরিচয় হয় “উইলিয়াম এ এস ঔডারল্যান্ড” নামক অস্ট্রেলিয়ান অফিসারের, যিনি সেই সময়ে বাটা সু কোম্পানির উর্ধতন কর্মকর্তা  ছিলেন। পুরস্কার নিয়ে খুলনায় ফিরে আসতেই ১৯৭০ সনের নির্বাচনকে ঘিরে দেশ উত্তাল হয়ে ওঠে, তখন তিনি খুলনাতেই থাকার সিদ্ধান্ত নেন, কিন্তু ১৯৭১ সালে মায়ের পেটে বড় ভাই “মনির” আসলে বাবা বেশ আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। ইতোমধ্যে শুরু হয়ে যায় যুদ্ধের দামামা। বাবা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন মা’কে নানা বাড়ি পৌঁছে দেবেন, চারিদিকে বিভীষিকাময় অবস্থা, যোগাযোগ ব্যবস্থা বলতে তেমন কিছুই ছিলোনা। মা’ ছিলেন বেশ সুন্দরী, নিজেদেরকে হায়েনাদের হাত থেকে রক্ষা করতে পায়ে হেটে ও রিকশা যোগে থেমে থেমে রওয়ানা দিলেন সেই খুলনার দোলখোলা থেকে পটুয়াখালীর উদ্দেশ্যে। কখনো পায়ে হেটে কখনো বা অধিক পারিশ্রমিকে বিনিময়ে রিকশায় চড়ে এগুতে থাকলেন। সাথে ছিল একটা মাত্র ট্রাংক (সেই আমলের ট্রাভেল ব্যাগ)

রূপসা ফেরিঘাটে পৌঁছাতেই মা- বাবা দুজনেই ধরা পরে যান পাকিস্তানিদের হাতে। বাবাকে নিয়ে অনেক জিজ্ঞাসাবাদ করে, গর্ভবতী মাকে কোন ক্ষতি না করলেও বাবাকে রূপসা নদীর তীরে গুলি করতে নিয়ে যান পাকিস্তানী আর্মিরা। অভিযোগ আনা হয়েছিল বাবা নাকি লুটের মালামাল তার ট্রাংকে বহন করছিলেন। বাবা বার বার বলছিলেন বহন করা ট্রাংকটি আমার নিজের কিন্তু আর্মিরা মানছিলেননা। বাবাকে গুলি করার জন্য নদীর কিনারে নিয়ে গেলে মায়ের চিৎকার শুনে জনৈক আর্মি অফিসার বাবাকে প্রমান করতে বলেছিলো যে ট্রাংকটি যে বাবার ছিল।

ভাগ্যের নির্মম পরিহাস আর্মিদের টানা হেচঁড়ায় কোমর থেকে ততক্ষনে চাবিটাও হারিয়ে গিয়েছিলো। ট্রিগারে টান দেয়ার ঠিক পূর্ব মুহূর্তে বাবার মনে পড়েছিল ট্রাংকের মধ্যে বিয়ের একটা ছবি রাখা আছে।  বাবা যখন চিৎকার করে জীবন ভিক্ষা চাইছিলেন তখন অন্য আরেক অফিসার এসে ট্রাংকটি ভেঙে ছবি বের করার সিদ্ধান্ত নিলেন। ট্রাংকটি ভাঙতেই বাবা মায়ের ছবিটি বের হয়ে আসলে সেদিন নির্ঘাত মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে যান আমার বাবা।

আবার পথ চলা শুরু করেন, মা তখন বেশ অসুস্থ, এমনিতেই গর্ভবতী তার উপরে চারিদিকে গোলা বারুদের গন্ধ, বিষাক্ত চারিদিক। কোন রকমে সুবিদখালীতে এসে পৌঁছালে নানা বাড়িতে কান্নার রোল পড়ে যায়।  মাত্র কয়েক সপ্তাহ পরে ফুটফুটে বড় ভাই মনিরের জন্ম হয় কিন্তু সারা শরীর বিষাক্ত ছিল মাত্র ছয়মাস বয়সে ভাইটি আমার মারা গিয়েছিলো। এরপরে কয়েক বছর পরে আমার জন্ম হয়।  এ পর্যন্ত বলেই সেদিন বাবা আমার চিৎকার দিয়ে কান্না শুরু করেছিলেন।

কয়েক মুহূর্ত নির্বাক থেকে আবার শুরু করলেন। বলেছিলেন; মা’কে রেখে চাকুরী বাঁচাতে তিনি কর্মস্থল খুলনার বাটা সু কোম্পানিতে আবার ফিরে আসেন। তখন যুদ্ধ শেষ হয়নি। দমকা হওয়ার মতোই কিছু কর্মস্থলে মানুষ যাতায়াত করতো। বাটা সহ বেশ কিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মাঝে মাঝে খুলতো আর বন্ধ করতো। এমনই পরিস্থিতিতে আচমকাই শুনতে পেলেন বাটার উর্ধতন কর্মকর্তা “উইলিয়াম এ এস ঔডারল্যান্ড” বাংলাদেশের মুক্তি আন্দোলনে সরাসরি যুক্ত হয়েছেন। ঠিক তখনই সিদ্ধান্ত নিলেন বাটা সু কোম্পানি তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিলেও আমার বাবা মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানে দেশ স্বাধীন না হওয়া পর্যন্ত আর কর্মস্থলে যোগদান করবেন না।  সেদিন থেকে বাটা সু দোকান না খুললেও বাবা আমার দোকানের চারপাশেই থাকতেন যাতে তার কর্মস্থলের কেও কোন ক্ষতি করতে না পারেন।

১৯৭১ সালের নভেম্বর মাসের কোন একদিন (তারিখটি আমার বাবা ঠিকভাবে বলতে পারেননি) খুলনা শহরে পাকিস্তানী আর্মিরা বন্ধ থাকা সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগুন ধরিয়ে দেয়। বাবা প্রানপন চেষ্টা করেছিলেন বাটার দোকান সহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলি বাঁচাতে কিন্তু পাকিস্তানী আর্মিরা তখন এলোপাতাড়ি গুলি ছোড়া শুরু করলে প্রাণ বাঁচাতে বাবা আমার ড্রেনের মধ্যে আত্মগোপন করেন কিন্তু তাকে লক্ষ্য করে ছোড়া গ্রেনেটি যখন ঠিক তার মাথার উপরে থাকা ম্যানহোলের ঢাকনায় বিকট আওয়াজে ফুটেছিলো তখনই অচেতন হয়ে পড়েছিলেন। আর্মিরা চলে গেলে স্থানীয় কয়েকজনের সহযোগিতায় জীবন রক্ষা পেলেও দুটি কানই স্তব্দ হয়ে গিয়েছিলো চিরতরে। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি ভালো করে শুনতে পেতেন না।  বাবা আমার সার্টিফিকেটধারী মুক্তিযোদ্ধা ছিলেননা কিন্তু মহান মুক্তিযুদ্ধে এমন হাজারো দেশপ্রেমিক ছিলেন যারা কিনা বিনা স্বার্থে দেশকে ভাল বেসেছেন। চেতনা কি জিনিস জানতেন না, বুঝতেননা রাজনীতি কি জিনিস! শুধু জানতেন বাংলাদেশ আমাদের আর এদশকে ভালোবাসা আমাদের দায়ীত্ব! বাবার মুখে উইলিয়াম সাহেবের নাম শুনেছি, তিনি ছিলেন আমার বাবার মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ।

গত কয়েকদিন ধরে উইলিয়াম সাহেবকে নিয়ে গবেষণা করে জানতে পারলাম তিনি একজন “বীর প্রতীক” খেতাব প্রাপ্ত মহান মুক্তিযোদ্ধা। বাবা আমার উইলিয়াম সাহেবের নামটি ঠিকভাবে উচ্চারণ করতে পারতেন না কিন্তু তাকে ভালোবাসতেন। আজকের এই দিনে সালাম জানাই নাম না জানা সকল মুক্তিযোদ্ধাদের যাদের রক্তের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও স্বার্বভৌমত্ব।

নিম্নে আমার গবেষণায় উঠে আসা উইলিয়াম এ এস ঔডারল্যান্ড বীরপ্রতীক সাহেবের পরিচিতি তুলে ধরা হলো:

১৯৭০ সালে তিনি প্রথম ঢাকায় আসেন। বাটা স্যু কোম্পানির প্রোডাকশন ম্যানেজার হিসেবে নিয়োগ পান। ১৯৭১ সালের প্রথম দিকে বাটা জুতার এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর হিসেবে টঙ্গীর কারখানায় নিয়োগ পান।

২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী অপারেশন সার্চলাইটের নামে গণহত্যা চালায়। সে সময় তিনি সেই রাতের ভয়াবহতার কিছু ছবি তুলে পাঠান আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে। বাটা স্যু কোম্পানীর মত বহুজাতিক একটি প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হওয়াতে অবাধ চলাচল ছিল সর্বত্র। সেই সুযোগে তিনি সম্পর্ক গড়ে তোলেন টিক্কা খান, রাও ফারমান আলী, নিয়াজিদের সাথে। আর অন্য দিকে প্রধান সেনাপতি কর্নেল এমএজি ওসমানীর সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন। তারপর সব তথ্য ফাঁস করে দিতেন।

তারপর নিজেই বাটার শ্রমিকদের সংঘবদ্ধ করে টংগীসহ সেক্টর ১ এবং ২ নম্বরে গড়ে তোলা গেরিলা বাহিনীকে নিজ দায়িত্বে প্রশিক্ষণ দেন। তিনি নিজেও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। তারপর নিজেই জীবন বিপন্ন করে বাংলাদেশের যুদ্ধে নেমে পড়েন। তিনি বাঙ্গালী যোদ্ধাদের নিয়ে টঙ্গী-ভৈরব রেললাইনের ব্রীজ, কালভার্ট ধ্বংস করে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত করতে থাকেন।

সে সময় তিনি ঢাকার অস্ট্রেলিয়ান ডেপুটি হাইকমিশনের গোপন সহযোগিতা পেতেন। রক্তক্ষয়ী নয়মাস মুক্তিযুদ্ধের শেষে টঙ্গীতে ফিরে আসেন বিজয়ীর বেশে। ১৯৭৮ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশেই ছিলেন তারপর নিজ দেশ অস্ট্রেলিয়ায় ফিরে যান। তিনিই একমাত্র বিদেশী বাংলাদেশী যিনি মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য “বীর প্রতীক” খেতাব পান। তার নাম “উইলিয়াম এ এস ঔডারল্যান্ড” । যিনি একজন অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক। ২০০১ সালের ১৮ মে অস্ট্রেলিয়ার পার্থের হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

 

 

 

 

 

 

 

PBC24