ধর্ষণকারীদের সামাজিকভাবে প্রতিহত ও সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান করতে হবে —মাওলানা ওবায়দুল হক

পিবিসি নিউজ:  বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টির সভাপতি মাওলানা ওবায়দুল হক বলেছেন, বাংলাদেশে ধর্ষণ মহামারির আকার ধারণ করেছে। দূনীর্তি ,খুনের সাথে ধর্ষণ ব্যাপক আকারে চলছে। বাংলাদেশের মানুষ চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে ।সরকার বাংলাদেশের মানুষকে নিরাপত্তা দিতে পারছে না। সরকার দলীয় লোকজন এসব খুন,ধর্ষনের সাথে জড়িত থাকায় সরকার কার্যকর পদক্ষেপ নিতে পারছে না। জুলুম অত্যাচার নির্যাতনকারীদের পরিচয় হচ্ছে তারা বর্তমান সরকারের লোকজন। সরকারের প্রশ্রয়ের কারণে এসব অপরাধীদের কোন বিচার হচ্ছে না। ধর্মীয় ও নৈতিক শিক্ষায় গুরুত্ব দিয়ে ইসলামী বিধানমতে ধর্ষণকারীদের শাস্তির আইন পাশ করতে হবে। দেশব্যাপী ধর্ষনের প্রতিবাদ ও ধর্ষণকারীর সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টির মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
৯ অক্টোবর শুক্রবার ২০২০ইং বাদ জুমআ বায়তুল মোকারম মসজিদের উত্তর গেইটে নেজামে ইসলাম পার্টির সভাপতি মাওলানা ওবায়দুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন দেশ প্রেমিক নাগরিক পার্টির চেয়ারম্যান আহসান উল্লাহ শামীম, বাংলাদেশ জমিয়াতুল মুফাসসিরীনের চেয়ারম্যান মুফাসসির অধ্যাপক বাজলুর রহমান আমিনী , বাংলাদেশ মুসলিম সমাজের চেয়ারম্যান ডা: মোহাম্মদ মাসুদ হোসেন, নেজামে ইসলাম পার্টির হাফেজ মাওলানা এরশাদুল্লাহ,হাফেজ মাওলানা মোহাম্মদ উল্লাহ জামি, মুফতি আল আমিন,হাফেজ মাওলানা শরীফ আহমেদ সহ দলের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।


অন্যান্য বক্তারা বলেন, সরকার দেশ চালাতে গিয়ে হিমসিম খাচ্ছে।প্রতিদিন ধর্ষনের ঘটনা ঘটলেও সরকার কার্যকর পদক্ষেপ নিতে পারছে না। সরকার নিজের দলের লোকজনকে প্রশয় দিতে গিয়ে দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটছে । দেশের মানুষের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। এ পরিস্থিতির পরিবর্তন আনতে হবে।

নেজামে ইসলাম পার্টির সভাপতি মাওলানা ওবায়দুল হক আরো বলেন, ধর্ষণের ঘটনা কমাতে ইসলামী শরীয়া আইন চালুর কোন বিকল্প নেই । বর্তমান বিদ্যমান আইন ধর্ষণ বন্ধ করতে ব্যর্থ হয়েছে। এদেশ ধর্ষণকারীর দেশ হিসেবে পরিচিতি লাভ করছে । তাই রাষ্ট্র ধর্ম ইসলামের এই দেশে অনতিবিলম্বে শরীয়া আইন চালু করতে হবে। অন্যথায় ধর্ষণকে কোনোভাবেই বন্ধ করা যাবে না

Tags:

PBC24